কেমন আছে পাবলো এসকোবারের জলহস্তিরা?

জলহস্তির মূল আবাসস্থল আফ্রিকাতে। কিন্ত ল্যাটিন আমেরিকার দেশ কলম্বিয়ার ম্যাগডেলেনা নদীতে আপনি এর সন্ধান পাবেন। ১৯৮০ সালে ড্রাগ কিং পাবলো এসকোবার তার ব্যক্তিগত চিরিয়াখানার জন্য চারটি জলহস্তি আফ্রিকা থেকে স্মাগলিং করে নিয়ে আসে। কিন্ত ১৯৯৩ সালে পাবলো এসকোবারের মৃত্যুর পর তার এই চিরিয়াখানা থেকে জলহস্তি ছাড়া অন্যান্য সব প্রাণীই তারা সড়িয়ে নেয়। [১]

এই সুযোগে জলহস্তিরা তাদের মূল অবস্থান থেকে বের হয়ে কলম্বিয়ার মূল লোকালয় এবং স্থানীয় এলাকায় নিরাপদে আবাস শুরু করে। কিন্ত অসংখ্য কারণ, এখন কলম্বিয়ান গভমেন্ট এবং স্থানীয়দের জন্য সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এর কারণ হল, জলহস্তিদের মূল আবাসস্থল আফ্রিকাতে খরা এবং খাবারের অভাবের কারণে সেখানকার জলহস্তিদের সেক্সুয়ালি অ্যাক্টিভ হতে পুরুষ জলহস্তির জন্য সাত এবং মহিলা জলহস্তির জন্য নয় বছরের প্রয়োজন। কিন্ত কলম্বিয়াতে পর্যাপ্ত খাদ্য এবং কোন খরা বা পানির অভাব না থাকায় তিন বছরে এসেই এরা পূর্ণবয়স্ক হয়ে যায়। এবং এদের প্রতি বছরই এরা বাচ্চা দান করে। তাই কলম্বিয়াকে এক কথায় এই জলহস্তিদের জন্য স্বর্গ হিসেবে সাব্যস্ত করা যায়। [২]

সমস্যা হল, জলহস্তিরা স্তন্যপায়ী প্রাণীর মধ্যে অন্যতম ভয়ংকর এবং বিপদজনক প্রাণী। স্তন্যপায়ী প্রাণীদের মধ্যে আফ্রিকাতে সবচেয়ে বেশি মানুষ নিহত হয় এই জলহস্তি দ্বারা। তাই এরকম একটা ভয়ানক প্রাণীর মানুষের মধ্যে চলাচল নিঃসন্দেহে ভীতিকর ব্যাপার। আর যেহেতু জলহস্তিদের মূল আবাসস্থল কলম্বিয়াতে নয় তাই অন্যান্য প্রাণীর উপরও এর প্রভাব ফেলছে। এবং স্থানীয় খামারিদের গৃহপালিত পশুর উপর নিয়মিত আক্রমণ করার ঘটনা ঘটছে।
পাবলো এসকোবারের রেখে যাওয়া চারটি জলহস্তি থেকে এখন কয়টাতে এসে পৌছিয়েছে সেই নির্দিষ্ট শুমারি না থাকলেও তা যে ষাটের কম নয় সে ব্যাপারে নিশ্চিত। এক স্থানের প্রাণী অন্যস্থানে নিয়ে এসে বংশবিস্তারের সুযোগ করে দিলে তা যে জীব বৈচিত্রের জন্য হুমকি বয়ে আনে তার আদর্শ প্রমাণ পাবলো এসকোবারের এই জলহস্তিরা।

Reference :

[১] https://www.nationalgeographic.com/animals/2018/09/colombia-cocaine-hippos-rewilding-experiment-news/

[২] https://www.bbc.com/news/magazine-27905743

[৩] https://www.cbsnews.com/news/pablo-escobars-hippos-keep-multiplying-and-colombia-doesnt-know-how-to-stop-it/

লিখেছেনঃ Muhammad Saowabullah

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *