বাঘবাল্লা প্রজাপতি

অনেকের কাছে  এরা বাঘ বা বাঘবাল্লা নামেও পরিচিত। একে রাজকীয় প্রজাপতি হিসেবে গণ্য করা হয়। তাই এরা রাজা বা (Monarch) নামেও পরিচিত। ইংরেজিতে এদের বলে Striped Tiger/Common Tiger/Indian Monarc এরা হচ্ছে Danaidae (ডানাইডি) পরিবারে সদস্য এই ডোরাকাটা বাঘের বৈজ্ঞানিক নাম Danaus genutia genutia. এরা পরিযায়ী স্বভাবের প্রজাপতি। সব অঞ্চলেই বাস করতে সক্ষম। তবে অতি বৃষ্টিপাতপ্রবণ এলাকায় বেশি দেখা যায়। সারা বছরই ঝোপ-জঙ্গল ও বাগানে ফুলে ফুলে উড়ে বেড়ায়।

সমুদ্রপৃষ্ঠের দুই হাজার ৫০০ মিটার উঁচুতেও দেখা মেলে। এরা ধীরগতির প্রজাপতি। তবে পরিযায়ী স্বভাবেরগুলো দ্রুতগতিতেও উড়তে পারে। হেমন্তে এরা সহজেই কানাডা থেকে মেক্সিকো পর্যন্ত পথও পাড়ি দিতে পারে। স্ত্রী প্রজাপতি নির্দিষ্ট গাছের পাতার নিচের প্রান্তে ডিম পাড়ে। ডিমের সংখ্যা হালকা হলদে হয়ে যায়। ডিম ফুটে শূককীট বের হতে মাত্র চার দিন লাগে। শূককীট বের হয়ে প্রথমেই ডিমের খোসাটি খেয়ে ফেলে।

এর পর থেকে পাতা খেয়েই বড় হয়। শূককীটের দেহে হলুদ, কালো ও সাদা ডোরা থাকে। মাথায় থাকে হলুদ ও কালো ডোরা। এগুলো ৫ সেন্টিমিটার লম্বা হয়। শূককীট দুই সপ্তাহ পর মুককীটে পরিণত হয়। আর মুককীট অবস্থায় দুই সপ্তাহ থাকার পর একদিন সকালে খোলস কেটে পূর্ণবয়স্ক ডোরাকাটা বাঘ বের হয়ে আসে। এরা দুই থেকে আট সপ্তাহ পর্যন্ত বেঁচে থাকে। বাংলাদেশ ছাড়াও পুরো এশিয়া, আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া ও ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলো এবং ক্যানারি দ্বীপে এদের দেখা মেলে।

প্রসারিত অবস্থায় এদের ডানার মাপ স্ত্রী-পুরুষ নির্বিশেষে ৭ দশমিক ২ থেকে ১০ দশমিক শূন্য সেন্টিমিটার হয়। সাধারণত পুরুষটি স্ত্রীর চেয়ে কিছুটা বড়। সামনের ডানার ওপরের কোষগুলো গাঢ় কমলা-বাদামী পেছনের ডানারগুলো হালকা কমলা-বাদামি। ডানার কালো ও স্পষ্ট শিরাগুলোই ডোরাকাটা দাগের সৃষ্টি করে। নিচে তিনটি কমলা ও কতগুলো সাদা দাগ রয়েছে। এ ছাড়া পুরো ডানার প্রান্তজুড়ে রয়েছে কালো ডোর, যার ওপর দুই সারি সাদা ফোঁটা। কালোর ওপর সাদা ফোঁটার এই কারুকাজ প্রজাপতিটির মাথা, বুক ও পেটেও দেখা যায়। দেহের নিচের অংশের রং ও কারুকাজ ওপরের অংশের মতোই, তবে হালকা।

পেছনের ডানার নিচের দিকে সাদা-কালো ফোঁটা দেখে পুরুষ প্রজাপতি চেনা যায়। দেহ ও ডানার উজ্জ্বল কমলা ও কালো রং কিন্তু বেশ বিষাক্ত। এই রং দেখেই শত্রুরা এদের ধারেকাছে ঘেঁষতেও সাহস পায় না।

লিখেছেনঃ শেখ সাদী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *